‘আমার ড্রেজার ভাঙলে খবর আছে’— অবৈধ ড্রেজার মালিকের দাম্ভিকতা!

সরকারি বিভিন্ন প্রকল্পের মাটি ভরাট কাজ করা হচ্ছে ড্রেজার মেশিনে বালু উত্তোলন করে। ওইসব ড্রেজার মেশিন জব্দ না করে ‘আমার ড্রেজার ভাঙলে খবর আছে’— দাম্ভিকতা দেখিয়ে প্রশাসনের প্রতি এমন নেতিবাচক মন্তব্য করেছে জামালপুরের ইসলামপুরের এক অবৈধ ড্রেজার মেশিন মালিক।
আপত্তিকর মন্তব্যকারী উপজেলার চরপুটিমারি ইউনিয়নের চতলাপাড়া গ্রামের ছবেদ আলীর ছেলে সোহেল ফকির। সে দীর্ঘদিন ধরে অবৈধ ড্রেজার মেশিন দিয়ে নদী খনন করে আসছে।
জানা যায়, চতলাপাড়া গ্রামে দুই দুইটি ব্রিজের সন্নিকটে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে আসছে সোহেল ফকির। এতে চতলাপাড়া-হরিণধরা রাস্তায় প্রায় কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত দুইটি ব্রিজ খালের গর্ভে দেবে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। ড্রেজার মেশিনে বালু উত্তোলন করায় দুই কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত দুইটি ব্রিজ খালের গর্ভে দেবে যাওয়ার আশঙ্কার খবরে ওই এলাকায় গেলে গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে প্রমাসনের উদ্দেশ্য এমন নেতিবাচক মন্তব্য করে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনকারী ড্রেজার মালিক সোহেল ফকির।
সরেজমিনে দেখা গেছে, ওই ইউপির মেম্বার শাহ আলম শুকুরের বসতবাড়ি সংলগ্ন চতলাপাড়া-হরিণধরা রাস্তার পাশে খালের মধ্যে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে সোহেল ফকির দীর্ঘদিন থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে আসছে। ব্রিজের সন্নিকটে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলন করায় প্রায় কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত দুইটি ব্রিজ ধসে পড়ার আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী।
স্থানীয় ইউপি মেম্বার শাহ আলম শুকুর জানান, ‘ব্রিজের কাছে ড্রেজার মেশিনে বালু উত্তোলন করায় দুই দুইটি ব্রিজ যে কোনো সময় ধসে যেতে পারে।’
ড্রেজার মালিক সোহেল জানায়, ‘বিভিন্ন সরকারি  প্রকল্পে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করে মাটি ভরাট করা হচ্ছে। ওইসব ড্রেজার মেশিন তো প্রশাসন জব্দ করে না। আমি ড্রেজার মেশিনে বালু তোলে বিক্রি করে সংসার চালাই। আমার ড্রেজার ভাঙচুর করলে খবর আছে। ‘
dailykagojkolom.com এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।