স্ত্রীর পরকীয়ায় স্ত্রী ও প্রেমিকসহ পিটিয়ে হত্যা

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় যুবকের সাথে স্ত্রীকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে তাদের পিটিয়ে হত্যা করেছেন স্বামী ও তার ছোট ভাই। সোমবার (৮ ফেব্রুয়ারি) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মির্জা সালাউদ্দিন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, ঘটনার সাথে জড়িত নিহতের স্বামী শেখ আহসান (৪৫) ও তার ছোট ভাই শেখ আসাদকে (৩৫) আটক করেছে পুলিশ। এছাড়া নিহতের বাড়ি সংলগ্ন পাঁচিলের পাশ থেকে হত্যায় ব্যবহৃত লোহার রড ও আলামত উদ্ধার করেছে পুলিশ।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, ‘নিহত গৃহবধূ ফাতেমার (৪০) সাথে দীর্ঘদিন ধরে পরকীয়া সম্পর্কে ছিল শ্যামনগর উপজেলার ধুমঘাট এলাকার জয়নাল পারের ছেলে নিহত করিম পারের (৩০) সাথে। ঘটনার দিন শনিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাতে নিহত ফাতেমার শ্বশুরবাড়ি পরিত্যক্ত এক কক্ষে আপত্তিকর অবস্থায় দুজনকে দেখেন তার স্বামী।’

নিহত ফাতেমার বাকপ্রতিবন্ধী স্বামী ও তার ছোট দেবর মিলে প্রথমে দুজনকে লোহার রড দিয়ে আঘাত করে হত্যা করে। পরে নিহত ফাতেমার গায়ে ব্যবহৃত কালো রঙের ওড়না ও গামছা দিয়ে গলায বেঁধে আম গাছে ঝুলিয়ে রাখেন। পরে রোববার (৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে তাদের উদ্ধার করে পুলিশ।

এসময় উপস্থিত ছিলেন কলারোয়া থানা অফিসার ইনচার্জ মীর খায়রুল কবীর ও থানা পুলিশের সঙ্গীয় ফোর্স৷ রোববার (৭ ফেব্রুয়ারি) ভোরে এলাকাবাসী কলারোয়া উপজেলার কয়লা ইউনিয়নের শ্রীপতিপুর গ্রামের শেখ হাসানের স্ত্রী ফাতেমা বেগম (৪০) ও শ্যামনগর উপজেলার ধুমঘাট দক্ষিণপাড়ার জয়নাল পাড়ের ছেলে করিম পাড়ের (৩০) ঝুলন্ত লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে।

তবে ঘটনার দিন তারা আত্মহত্যা করেছে নাকি এটি একটি হত্যাকান্ড সে ব্যাপারে ধুম্রজালের সৃষ্টি হয়।

 

dailykagojkolom.com এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।