মেলান্দহে শিশু শিক্ষার্থী ধর্ষণ, শিক্ষক কারাগারে

জামালপুরের মেলান্দহে ষষ্ঠ শ্রেণির এক শিশু শিক্ষার্থী (১১) ধর্ষণের শিকার হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে মুখলেসুর রহমান নামে এক শিক্ষককে রবিবার (৮ মার্চ) আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ।

ভিযুক্ত মুখলেছুর রহমান উপজেলার মিছবাহুল জান্নাত মহিলা মাদরাসার সুপার ও মাহমুদপুর ইউনিয়নের ঠেংগেপাড়া গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে। শনিবার (৭ মার্চ) বিকেল ৫টার দিকে মেলান্দহ বাজারের কাজিরপাড়ায় ওই সুপারকে আটক করে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে স্থানীয়রা।

ধর্ষিতার পরিবার ও পুলিশ সূত্র জানায়, ২০১৭ সালে নিজবাড়িতে মহিলা আবাসিক মাদরাসা চালু করে মুখলেছুর রহমান। সে ৪ মার্চ মধ্যরাতে মাদরাসার আবাসিক কক্ষ থেকে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া ১১ বছরের ওই শিশুকে তার বিছানায় নিয়ে ধর্ষণ করে। তারপর একটি ঘরে ওই শিশুকে তালাবদ্ধ করে রাখে।

পরদিন ১২টার দিকে অন্য ছাত্রীদের সহায়তায় শিশুটি উদ্ধার হয়। ঘটনা জানিজানি হলে গা-ঢাকা দেয় মুখলেসুর।

শনিবার (৭ মার্চ) বিকেল ৫টার দিকে মেলান্দহ বাজারের কাজিরপাড়ায় তাকে আটক করে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে দেন স্থানীয়রা। রাতেই ধর্ষিতার বাবা লাল চাঁন বাদি হয়ে একটি মামলা (নং ৫) দায়ের করেন।

মেলান্দহ থানার ওসি মায়নুল ইসলাম জানান, ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্ত মুখলেসুর রহমানকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

dailykagojkolom.com এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।