সরিষাবাড়ীতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নৈশপ্রহরীই ক্লার্ক দেড় লক্ষ্য টাকা খোয়া

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ- জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে পিংনা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে নৈশপ্রহরীর দায়ীত্বের অবহেলায় রাতের আধারে এক লাখ পনেরো হাজার আটশত ষাট টাকা খোয়া যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।
গতকাল সোমবার দিবাগত রাতে এ ঘটনা ঘটে।
জানা যায় কয়েক বছর আগে নৈশ প্রহরী পদ শুন্য হওয়ায় রাজনৈতিক দাপটে চাকরি নেন মোঃ আব্দুল খালেক।
খালেক নৈশ প্রহরী পদে চাকরি নিলেও দায়ীত্ব পালন করেন ক্লার্কএর সহযোগী হিসাবে। করেন সকল নগদ টাকার লেনদেনের হিসাব। সখ্যতা রাখেন বিদ্যালয়ের সভাপতি ওয়াকার্স হাসান বাবন, প্রধান শিক্ষক মোজাম্মের হক, সহকারী প্রধান শিক্ষক রেজাউল করিম বাবুর সাথে।
নাইট ডিউটি কখনো ফাকা কখনো রাতে ডিউটি করেন তার প্রায় ৭০ বছর বয়সী পিতা।
প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক মোজাম্মেল হক জানান, সোমবার বিকালে ছাত্র ছাত্রীদের ফরম ফিলাপের টাকা ব্যাংকে জমা দিতে না পেরে আমার অফিসের আলমারিতে রেখে যাই।
পরের দিন স্কুলে এসে দেখি আমার রোমের দরজার তালা নেই রোমো গিয়ে দেখি টাকা রাখার আলমারি ড্রয়ার ভাঙ্গা এবং সেখানে রাখা নগদ টাকা নেই। এ বিষয়ে তারাকান্দি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে আমি বাদি হয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি।
এ বিষয়ে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ওয়াকার্স হাসান বাবন বলেন, বিদ্যালয়ের টাকা হারায়ছে সেটা আমি মানি না কারন কেন তারা নগদ টাকা প্রতিষ্ঠানে রাখলো, আর টাকা রাখলো আমাকে জানালো না কেন জানালে যেহেতু আমার বাসার সামনেই অফিস আমি সেই ভাবেই প্রহরী বলে রাখতাম।

তবে এ টাকা খোয়া যাওয়ার পিছনে প্রধান শিক্ষককে বিপদে ফেলতে অথবা এলাকার সুষ্ঠ পরিবেশকে ঘোলাটে করে এলাকার নেতৃস্থানীয়দের ব্যার্থতা প্রমান করে আইন শৃঙ্খলার অবনতি করতে সভাপতি ওয়কার্স হাসান বাবণ ও নৈশপ্রহরী মোঃ আব্দুল খালেকের অবিনব কৌষল হতে পারে বলে দাবী নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকার নেতৃৃস্থানীয় ব্যাক্তিদের।
তাই বিষয়টি সঠিক তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহনের দাবী সচেতন মহলের।

  1. তবে নৈশ প্রহরী মোঃ আব্দুল খালেকের সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।
dailykagojkolom.com এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।