প্রেমেরটানে ম্যাক্সিকোর তরোণী বাংলাদেশে

 

বাংলাদেশী ভাষা-সংস্কৃতি, ধর্ম-বর্ণসহ নানা ধরনের সংস্কার ও জাতিগত ভেদাভেদ ভুলে প্রেম-ভালোবাসার টানে বাংলাদেশে ছুটে আসছেন অনেক বিদেশী তরুণী। এটি এখন বাংলাদেশে নতুন কিছু নয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের পরিচয়ের সূত্র ধরে ঘর ছেড়েছেন ভালোবাসার টানে।
ভেদাভেদ ভুলে সাত সাগর তের নদী পাড়ি দিয়ে উড়ে এসেছেন বাংলাদেশের গ্রামেগঞ্জে। ভালোবাসার টানে ঘর ছাড়ার ঘটনা সমাজে অহরহ ঘটলেও বর্তমান যুগে দেশ ছাড়ার বিষয়টি যুক্ত হয়েছে। বিষয় গুলো মিডিয়ার বদৌলতে আলোচিত হয়েছে। অনেকেই প্রেমের টানে দেশ ছাড়লেও হয়নি কোন সংসার।

আবার অনেকেই স্ত্রীর সাথে বিদেশে পাড়ি জমিয়ে চুটিয়ে করছে সংসার, হয়েছে সন্তান। সুখের কাটছে তাদের দাম্পত্য জীবন। বিদেশ থেকে পাড়ি জমিয়ে প্রেমের টানে বাংলাদেশে আসা এমনি এক প্রেমের কাহিনি ঘটেছে জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলার পোগলদিঘা ইউনিয়নের চরপোগলদিঘা গ্রামে।

ম্যাক্সিকো থেকে জামালপুরে আসা
ম্যাক্সিকো কন্যা গ্লাডিস নাইলী মোরালিয়ার্স (৩২)।
তার সঙ্গে ফেসবুকে পরিচয় ঘটে জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলার চরপোগলদিঘা গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে রবিউল হাসান রোমেল (২৮)সাথে।

মাত্র আড়াই বছরের পরিচয়ের সূত্রধরে দু’জনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। প্রেমের টানে গত কাল ২১ নবেম্বর ২০২১ ছুটে আসে বাংলাদেশে গ্লাডিস নাইলী।
বিমানবন্দর থেকে ধর্মীয় ভাবে জর্জ কোর্টের মাধ্যমে মুসলিম হয়ে শরিয়াহ মোতাবেক বিবাহ করে নিজ গ্রামের বাড়ীতে তোলে প্রেমিক রোমান ও তার পরিবার।

বিষয়টি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে উৎসুক জনতার ঢল নামে।
জানাযায়,রোমান ময়মনসিংহ পলিটেকনিক হতে ডিপ্লোমা শেষ করে রাজধানীর একটি বেসরকারী কলেজে বি এস সি করতেছে।
আর গ্লাডিস নাইলী মোরালিয়ার্স ইউনিভার্সিটি শেষ করে ফুড ব্যাবসার সাথে জড়িত।

dailykagojkolom.com এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।