বাবা সন্তানের জীবনের প্রথম নায়ক

বাবা সন্তানের জীবনের প্রথম নায়ক

আলমগীর মোহাম্মদ

প্রভাষক, প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়

বাবা সন্তানের জীবনের প্রথম নায়ক। তাঁকে দেখে শিখি আমরা। তাঁর চোখে দুনিয়া দেখি যেমনটা মায়ের মুখে প্রথম কথা বলি আমরা।  বাবা, তিনি ব্যক্তি হিসেবে যেমনই হোন, কথাটা এভাবে  বলছি কারণ, বাবা,  তিনিও মানুষ।  আর পৃথিবীর সব মানুষ তো আর ভালো নয়,  কিন্তু নিজ নিজ সন্তানের কাছে তিনি নায়কই। তাই বাবার কথা উঠলেই আমরা সবাই তাঁর সম্পর্কে  ভালোটাই বলি সবসময়, বাড়িয়ে বলি, এই বাড়িয়ে বলাটা অনেক সময় মিথ্যে,  যদিও এই মিথ্যেকে আমি নিষ্কলুষ মিথ্যে হিসেবে ক্ষমার চোখে দেখি। একই চিত্র সোশ্যাল নেটওয়ার্কেও দৃশ্যমান।  বাবা দিবসে সবাই তাঁদের বাবাকে নিয়ে স্মৃতি, গ্লোরিফাইয়িং স্ট্যাটাস দিচ্ছেন।  এটা ভালো যে আমরা নিজ নিজ বাবাকে এপ্রিশিয়েট করতে শিখছি যা হয়তো পরবর্তীতে অন্য মানুষকেও ভালোবাসতে শেখাবে একদিন।
কিন্তু আমি অন্যসব বিষয়ে বোকাসোকা, আবেগী হলেও বাবা দিবসে একটু ভিন্নভাবে চিন্তা করতে চেষ্টা করি। ফেইসবুক স্মৃতিচক্র ঘেটে গত দুই বছরে বাবা দিবসে কি লিখেছিলাম খুঁজে বের করলাম। নিচে লেখা দুটো ঈষৎ সংক্ষেপ করে তুলে ধরলামঃ
১.
পৃথিবীর সকল বাবা যোগ্যতাসম্পন্ন নয়।আই মিন, সকলেই বাবা  হওয়ার যোগ্যতা রাখেন না। জনক হতে পারেন।
২.
সন্তানের জনক অনেকেই আছেন। বাবা আছেন কম।
পুরুষত্ব থাকলে বাবা হওয়া কঠিন না। পুরুষত্ব মানে শারিরীক দিক থেকে  বললাম।  বৃহৎ অর্থে নয়। নানা বলতেন, ‘ বাবা হওয়া মানে অনেক সময় সাময়িক উত্তেজনার বশে করা ভুল, আবার কখনো জীবনকে, জীবন সংগ্রামকে কবুল করে নেয়া’। স্ব-শিক্ষিত নানার কথাটা আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ।  পথ চলতে প্রায়সময় রাস্তার পাশে শুয়ে থাকা মা’দের কথা ভাবি। কোলে একটা বাচ্চা, হাত ধরে একটা,  আরেকটু বড়টা হাতে বাটি নিয়ে এগিয়ে আসছে দুটো টাকার জন্য৷ এই দৃশ্য মহানগরীতে অনেক দেখবেন।  আমি চিন্তা করি তাদের বাবার কথা। এরা কই? এদের সন্তান বড় হয়ে কিরকম বাবা হবে? এই সন্তানদের দোষ কোথায়?
বাবা হওয়া চাট্টিখানি কথা নয় যদি আপনি আপনার সন্তানের জন্য চিন্তা করেন, তাকে লালন পালনের সব ভার বহন করেন। বাবা হওয়ার পর আমার নবজন্ম হয়েছে ব’লে মনে করি। এখন সবকিছু নতুন করে ভাবতে হয়। বাসায় খাবার আনার আগে কয়েকবার চিন্তা করতে হয় কিরকম খাবার নিয়ে যাচ্ছি যেটা খেয়ে বাচ্চার মা তাকে খাওয়াবে। বারবার চিন্তা করি নিরাপদ একটা পৃথিবী আমার সন্তান পাবে কি! এরকম চিন্তা আমার মনে হয় সকল বাবার। সন্তানের মঙ্গল কামনাই বাবা-মার জীবনের অন্যতম চাওয়া।
আপনার, আমার বাবা আমাদের জন্য আদর্শ বাবা। কিন্তু একটা ব্যাপার আমাকে ভাবায়। আমি চিন্তা করি অন্যভাবে। আপনার সন্তানের জন্য আপনি ভাবছেন, ভাববেন সেটা আমার দায়িত্ব। আপনি বাধ্য৷ সেটা নানা কারণে। আমি মনে করি আদর্শ বাবা তিনিই, যিনি অন্যের সন্তানের মঙ্গল কামনা করেন নির্দ্বিধায়, নিঃসংকোচে। নিজের সন্তান কল্যাণ  করতে গিয়ে অন্যের সন্তানের অনিষ্ট করছেন কিনা সেটা কয়েকবার ভেবে দেখা উচিত। সব সন্তানের জন্য মানবিক ও বিবেচক হতে পারাটাই আমি মনে করি বাবা হিসেবে একজন বাবার সার্থকতা।  শুধু নিজের সন্তানেরটা ভাবা স্বার্থপরতা।
সবাইকে বাবা দিবসের শুভেচ্ছা।  বাবা হয়েছি প্রায় বছর খানেক হলো। সন্তানের নিরাপদ ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রতিটি মুহূর্ত ভাবনায় থাকি। সবার সন্তানের মঙ্গল হোক। বাবার বয়সী সবাইকে আমরা শ্রদ্ধা করব নিজ নিজ বাবা ভেবে। এভাবে গড়ে উঠবে পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ ও চর্চা শিষ্টাচারের।
dailykagojkolom.com এ প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।